নিরভিকে ডট কমে আপনাকে স্বাগতম।এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন।প্রশ্ন করতে Ask a Question ক্লিক করুন।
4 like 0 dislike
18 views
asked in ইন্টারনেট by (371 points)

Your answer

প্রশ্নটি ভালোভাবে বুঝে যাচাই করে গুছিয়ে উত্তর দিন। আপনি যতটুকু জানেন তার সর্বোচ্চটুকু দেয়ার চেষ্টা করুন যাতে প্রশ্নকর্তা সন্তুষ্ট হয়। আপনার একটি ভুল উত্তর/পরামর্শ অন্য সদস্যদের বিভ্রান্ত করতে পারে এবং সমস্যা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই উত্তর দেয়ার পূর্বে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনার উত্তরটি তথ্যবহুল যুক্তিযুক্ত কি না।শুদ্ধ বানানে উত্তরটি লিখার চেষ্টা করুন।ধন্যবাদ।
Your name to display (optional):
Privacy: Your email address will only be used for sending these notifications.

1 Answer

3 like 0 dislike
answered by (389 points)

4G সাধারণত চার প্রকারের। 4G, 4GX, 4G Plus এবং তারও আরেকটু আছে। তবে সাধারণত আমরা এক কথায় বুঝি, 4G হলো 4G। এতো প‍্যাচ বুঝি না...4G 700MHz থেকে 2,600MHz এর তরঙ্গ ব্যবহার করে। 4G এর একটা সৎ ভাই আছে। যার নাম LTE (Long Term Evolution)। দুইটার মধ্যে কিছু টেকনিক্যালি পার্থক্য ছাড়া তেমন কোন পার্থক্য নাই। তাই LTE বা 4G যাই আসুক তাই ভালো আমাদের জন্য ....যদিও অস্ট্রেলিয়ার মতো কিছু উন্নত দেশে স্পিডের ক্ষেত্রে LTE আর 4G এর মধ্যে কিছু পার্থক্য দেখতে পাবেন।

ফোরজি খ্যাতি নিয়ে সর্বপ্রথম যে দুটি প্রযুক্তি বাজারে আসে তারা হলো ওয়াইম্যাক্স স্ট্যান্ডার্ড (WiMAX) এবং লং টার্ম ইভালুয়েশন বা এলটিই স্ট্যান্ডার্ড (LTE)। একটি ফোরজি সিস্টেমে ITU স্বীকৃত IMT Advanced এর যোগ্যতা থাকতে হবে। আগের যে কোনো জেনারেশন থেকে ফোরজির প্রধান প্রযুক্তিগত পার্থক্য হচ্ছে এটি যোগাযোগ স্থাপনের জন্য সার্কিট-সুইচ পদ্ধতি একেবারেই ব্যবহার করে না বরং "অল-ইন্টারনেট প্রটোকল" ভিত্তিক যোগাযোগ তৈরি করে।

নিরবিক ডট কম একটি প্রশ্ন উত্তর সাইট। এটি এমন একটি প্লাটফরম যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন।আর আপনি যদি সবজান্তা হয়ে থাকেন তাহলে অন্যের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।
...