137 বার প্রদর্শিত
"ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন Level 1
আল্লাহর দ্বীনকে তাঁর যমিনে বিজয়ী করার চেষ্টা-প্রচেষ্টা তথা জিহাদ একটি পবিত্র ও মহিমান্বিত ইবাদত।  এই ইবাদতকে যারা ভালোবাসেন কিংবা এর সাথে নিজেকে জড়াতে চান, এমন ঈমানদারদেরকে ধ্বংস করার জন্য ইবলিস এবং তার অনুসারীরা সারা দুনিয়াতে প্রতিনিয়ত চক্রান্ত করে যাচ্ছে। তারা যেকোনো মূল্যে মুসলিমদের মধ্য থেকে এই মহান ইবাদতের নাম নিশানা মুছে দিতে চায়। তাদের এই প্রকল্পের অংশ হিসেবে একদিকে তারা এই ইবাদতকে ভালোবাসেন এমন মুসলিমদের উপর সর্বশক্তি প্রয়োগ করে তাদের হৃদয় থেকে এর ভালোবাসা মুছে ফেলতে চাইছে। অন্যদিকে এর বিরুদ্ধে নানামুখী চক্রান্তের জাল ছড়িয়ে রেখেছে।
আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ ফরমান,
إِنَّ الشَّيْطَانَ لَكُمْ عَدُوٌّ فَاتَّخِذُوهُ عَدُوًّا
অর্থাৎ নিশ্চয়ই শয়তান তোমাদের শত্রু। সুতরাং তাকে শত্রু হিসেবে গ্রহণ করো। (সুরাহ ফাতির-৬)  
 .
এমতাবস্থায়, যারা ইকামতে দ্বীনের এই মহান কাজ করতে চান এবং নিজেকে এই কাজের একজন সহযোগী হিসেবে গড়ে তুলতে চান, তাদেরকে আল্লাহ তাআলার আদেশ ও রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাহর একনিষ্ঠ অনুসারী হতে হবে।  
.
আল্লাহ তাআলা কুরআনের বহু আয়াতে সতর্কতার নির্দেশ দান করেছেন এবং রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর জীবনের প্রতিটি কাজ অত্যন্ত সতর্কতার সাথে আঞ্জাম দিয়েছেন। আমরা যদি দ্বীন কায়েমের এই পবিত্র কাজে শরিক হতে চাই, তাহলে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অনুসরণে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে পা ফেলতে হবে। চারদিকে আল্লাহর দ্বীনের শত্রুদের পাতানো ফাঁদ থেকে নিজেকে হিফাযতের লক্ষ্যে চোখ-কান খোলা রেখে চলতে হবে।
আল্লাহ তাআলা ইরশাদ ফরমান,
يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا خُذُوا حِذْرَكُمْ فَانفِرُوا ثُبَاتٍ أَوِ انفِرُوا جَمِيعًا
হে মুমিনগণ ! তোমরা সতর্কতা অবলম্বন করো এবং আলাদা আলাদাভাবে কিংবা সমবেতভাবে (জিহাদের) অভিযানে বের হয়ে যাও।  (সুরাহ নিসা-৭১)
 .
রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম গোপনে দাওয়াতের সময় সতর্কতা অবলম্বন করেছেন, হিজরতের রাতে সতর্কতার সাথে বেড়িয়েছেন। সতর্কতা অবলম্বন করেছেন গারে সূরে, মদিনায় যাওয়ার সময়, বদরের যুদ্ধের পূর্বের রাতেও অত্যন্ত সতর্কতা সাথে গোয়েন্দার ভূমিকা নিয়েছেন। সতর্কতা অবলম্বন করেছেন উহুদের পাদদেশে তীরন্দাজ বাহিনী রাখার ক্ষেত্রে, উহুদের সাময়িক বিপর্যয়ের পর, খন্দকের যুদ্ধের প্রতিটি পরতে পরতে, হুদাইবিয়ার ঘটনায় এবং মক্কা বিজয়ের অভিযানে।  
.
এভাবে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দাওয়াত, হিজরত, ই’দাদ এবং জিহাদের প্রতিটি অধ্যায়ে আমরা সতর্কতা অবলম্বনের অসংখ্য দৃষ্টান্ত দেখতে পাই। সুতরাং আমরা যেনো সতর্কতার সুন্নাহর ব্যাপারে গাফিল না হই।
আমরা যেনো অনলাইনে দ্বীনের শত্রুদের ফাঁদে পা দিয়ে কখনো যেনো নিজের মোবাইল নাম্বার, নাম-পরিচয় ইত্যাদি প্রকাশ না করি বা কাউকে প্রদান না করি।
 .
অনেকে অনলাইনে বিভিন্ন আইডি থেকে ঝুঁকিপূর্ণ ইস্যুতে টাকা তোলেন । যেমন- মাজলুম বন্দীদের মুক্ত করার জন্য, আল্লাহর রাস্তায় হিজরতের জন্য ইত্যাদি কারণে। এদের মধ্যে অনেকেই এমন আইডি থেকে টাকা তোলেন যাদের অফলাইনে/বাস্তব জীবনে কোন এক্টিভিটি পাওয়া যায় না। তারা অনেক পুরাতন বা সেলেব্রিটি আইডি হলেও কেবল অনলাইন ভিত্তিক হওয়ার কারণে কোনোভাবে তাদেরকে বিশ্বাস করে সাদাকা করা ঠিক হবে না। কেননা, অনেক সময় শত্রুবাহিনীর লোক এভাবে সহজ সরল মুসলিমদের ফাঁদে ফেলে কিংবা অনেক ভণ্ড লোকও এই সুবিধা নিয়ে অর্থ আত্মসাৎ করে বলে নানা সূত্রে নিশ্চিত হতে পেরেছি। তাই সবাইকে সাবধান করা আমার দায়িত্ব মনে করে বিষয়টি আপনাদের সামনে অবতারণা করলাম।
.
আল্লাহ সুবহানাহু তাআলা আমাদের সকলকে ইকামতে দ্বীনের কাজে সতর্কতা অবলম্বনের তাউফিক দান করুন।

এই প্রশ্নটির উত্তর দিতে দয়া করে প্রবেশ কিংবা নিবন্ধন করুন ।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
1 উত্তর
0 টি উত্তর
1 উত্তর
12 জুন 2018 "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Siddique Level 7
নির্বিক এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন এবং পাশাপাশি অন্য কারো প্রশ্নের উত্তর জানা থাকলে তাদের উত্তর দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।
...