• নিবন্ধন
search
প্রবেশ
নির্বিক ডট কম এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন এবং পাশাপাশি অন্য কারো প্রশ্নের উত্তর জানা থাকলে তাদের উত্তর দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।প্রশ্ন উত্তর করতে এখনই নিবন্ধন করুন।
0 টি ভোট
67 বার প্রদর্শিত
বাংলাদেশের বিস্তারিত বর্ণনা  দিন।
"সাধারণ" বিভাগে
0
কোন ধরনের বর্ণনা প্রয়োজন?
0
বাংলাদেশের ইতিহাস বিস্তারিত বর্ণনা দিন।

2 উত্তর

0 টি ভোট
বাংলাদেশে সংসদীয় গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থা প্রচলিত। বাংলাদেশ দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা ও বিমসটেক-এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। এছাড়া দেশটি জাতিসংঘ, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা, বিশ্ব শুল্ক সংস্থা, কমনওয়েলথ অফ নেশনস, উন্নয়নশীল ৮টি দেশ, জোট-নিরপেক্ষ আন্দোলন, ওআইসি, ইত্যাদি আন্তর্জাতিক সংঘের সক্রিয় সদস্য।
0 টি ভোট
বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র। বাংলাদেশের সাংবিধানিক নাম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ। ভূ-রাজনৈতিক ভাবে বাংলাদেশের পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, উত্তরে পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও মেঘালয়, পূর্ব সীমান্তে আসাম, ত্রিপুরা ও মিজোরাম, দক্ষিণ-পূর্ব সীমান্তে মায়ানমারের চিন ও রাখাইন রাজ্য এবং দক্ষিণ উপকূলের দিকে বঙ্গোপসাগর অবস্থিত।[১০] বাংলাদেশের ভূখণ্ড ভৌগোলিকভাবে একটি উর্বর ব-দ্বীপের অংশ বিশেষ। পার্শ্ববর্তী দেশের রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরা-সহ বাংলাদেশ একটি ভৌগোলিকভাবে জাতিগত ও ভাষাগত "বঙ্গ" অঞ্চলটির অর্থ পূর্ণ করে। "বঙ্গ" ভূখণ্ডের পূর্বাংশ পূর্ব বাংলা নামে পরিচিত ছিল, যা ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে বাংলাদেশ নামে স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। পৃথিবীতে যে ক'টি রাষ্ট্র জাতিরাষ্ট্র হিসেবে মর্যাদা পায় তার মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ বাংলাদেশ পতাকা জাতীয় প্রতীক জাতীয় সঙ্গীত: আমার সোনার বাংলা জাতীয় রণ-সঙ্গীত: "নতুনের গান"[১] বাংলাদেশ সরকারের সিলমোহর ◾বাংলাদেশ সরকার ও মন্ত্রণালয়সমূহের সীল রাজধানী এবং বৃহত্তম নগরী ঢাকা সরকারি ভাষাসমূহ বাংলা[২] স্বীকৃত রাষ্ট্র ভাষাসমূহ বাংলা জাতিগোষ্ঠী(২০১১[৩]) ◾৯৮% বাঙালি ◾২% অন্যান্য চাকমা বিহারি মারমা সাঁওতাল মুরং রাখাইন তনচংগা বম ত্রিপুরা খুমি কুকি গারো বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরি ভারতীয় চীনা ধর্ম ◾৯০.৪% ইসলাম ◾৮.৫% হিন্দু ◾০.৬% বৌদ্ধ ◾০.৪% খ্রিস্টান ◾.১০% আদিবাসী জাতীয়তাসূচক বিশেষণ বাংলাদেশি সরকার সংসদীয় গণতন্ত্র • রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা • সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী • প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন আইন-সভা জাতীয় সংসদ গঠন ও স্বাধীনতা • বঙ্গভঙ্গ ও ব্রিটিশ ভারতের সমাপ্তি ১৪-১৫ আগস্ট ১৯৪৭ • পূর্ব পাকিস্তান ১৪ অক্টোবর ১৯৫৫ • পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতা ঘোষণা ২৬ মার্চ ১৯৭১ • বিজয় দিবস ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ • সংবিধান ৪ নভেম্বর ১৯৭২ • সর্বশেষ ভূখণ্ড বিনিময় ৩১ জুলাই ২০১৫ আয়তন • মোট ১,৪৭,৫৭০ কিমি২ (৯২তম) ৫৬,৯৭৭ বর্গ মাইল • পানি (%) ৭% জনসংখ্যা • ২০১৭ আনুমানিক ১৬২,৯৫১,৫৬০[৪] (৭ম) • ২০১১ আদমশুমারি ১৪৯,৭৭২,৩৬৪[৫] (৮ম[৪]) • ঘনত্ব ১,১০৬/কিমি২ (১০ম) ./বর্গ মাইল মোট দেশজ উৎপাদন (ক্রয়ক্ষমতা সমতা) ২০১৮ আনুমানিক • মোট $৭৫১.৯৪৯ বিলিয়ন[৬] (৩১তম) • মাথা পিছু $৪,৫৬১[৬] (১৩৯তম) মোট দেশজ উৎপাদন (নামমাত্র) ২০১৮ আনুমানিক • মোট $২৮৫.৮১৭ বিলিয়ন[৬] (৪৩তম) • মাথা পিছু $১,৭৫৪[৪] (১৪৮তম) জিনি সহগ (২০১৬) ৩২.৪০[৮] মাধ্যম মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৮) বৃদ্ধি ০.৬০৮[৯] মধ্যম · ১৩৯তম মুদ্রা টাকা (৳) (BDT) সময় অঞ্চল বাংলাদেশ মান সময় (ইউটিসি+৬) তারিখ বিন্যাস বঙ্গাব্দ দদ-মম-বববব খ্রিস্টাব্দ dd-mm-yyyy গাড়ী চালনার দিক বাম কলিং কোড +৮৮০ ইন্টারনেট টিএলডি .বাংলা .bd ওয়েবসাইট বাংলাদেশের বর্তমান সীমান্ত তৈরি হয়েছিল ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দে যখন ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনাবসানে, বঙ্গ (বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি) এবং ব্রিটিশ ভারত বিভাজন করা হয়েছিল। বিভাজনের পরে বর্তমান বাংলাদেশের অঞ্চল তখন পূর্ব বাংলা নামে পরিচিত ছিল, যেটি নবগঠিত দেশ পাকিস্তানের পূর্ব অঞ্চল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছিল। পাকিস্তান অধিরাজ্যে থাকাকালীন ‘পূর্ব বাংলা’ থেকে ‘পূর্ব পাকিস্তান’-এ নামটি পরিবর্তিত করা হয়েছিল। শোষণ, বৈষম্য ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশ হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দারিদ্র্যপীড়িত বাংলাদেশে বিভিন্ন সময় ঘটেছে দুর্ভিক্ষ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ; এছাড়াও প্রলম্বিত রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ও পুনঃপৌনিক সামরিক অভ্যুত্থান এদেশের সামগ্রিক রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বারংবার ব্যাহত করেছে। গণসংগ্রামের মধ্য দিয়ে ১৯৯১ খ্রিস্টাব্দে গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছে যার ধারাবাহিকতা আজ পর্যন্ত। সকল প্রতিকূলতা সত্ত্বেও গত দুই দশকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রগতি ও সমৃদ্ধি সারা বিশ্বে স্বীকৃতি লাভ করেছে। বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান অষ্টম যদিও আয়তনের হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্বে ৯৪তম; ফলে বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলোর নবম। মাত্র ৫৬ হাজার বর্গমাইলেরও কম এই ক্ষুদ্রায়তনের দেশটির প্রাক্কলিত (২০১৮) জনসংখ্যা ১৮ কোটির বেশি অর্থাৎ প্রতি বর্গমাইলে জনবসতি ২৮৮৯ জন (প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ১১১৫ জন)। রাজধানী ঢাকা শহরের জনসংখ্যা ১.৪৪ কোটি এবং ঢাকা মহানগরীর জনঘনত্ব প্রতি বর্গমা্গইলে ১৯,৪৪৭ জন।[১১] দেশের জনসংখ্যার ৯৯ শতাংশ মানুষের মাতৃভাষা বাংলা; সাক্ষরতার হার ৭২ শতাংশ। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে চলতি বাজারমূল্যে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) পরিমাণ ছিল ২৬১.২৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বৃদ্ধি লাভ করে ২৮৫.৮২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার উন্নীত হবে বলে প্রাক্কলন করা হয়েছে।[১২] ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু গড় বার্ষিক আয় ছিল ১ হাজার ৭৫২ ডলার। সরকার প্রাক্কলন করেছে যে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে ১ হাজার ৯৫৬ ডলার বা ১ লাখ ৬০ হাজার ৩৯২ টাকা।[১৩] দারিদ্রের হার ২৬.২০ শতাংশ, অতিদরিদ্র মানুষের সংখ্যা ১১.৯০ শতাংশ, এবং বার্ষিক দারিদ্র হ্রাসের হার ১.৫ শতাংশ। এই উন্নয়নশীল দেশটি প্রায় দুই দশক যাবৎ বার্ষিক ৫ থেকে ৬.২ শতাংশ হারে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির অর্জনপূর্বক "পরবর্তী একাদশ" অর্থনীতিসমূহের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। রাজধানী ঢাকা ও অন্যান্য শহরের পরিবর্ধন বাংলাদেশের এই উন্নতির চালিকাশক্তিরূপে কাজ করছে। এর কেন্দ্রবিন্দুতে কাজ করেছে একটি উচ্চাকাঙ্ক্ষী মধ্যবিত্ত শ্রেণীর ত্বরিত বিকাশ এবং একটি সক্ষম ও সক্রিয় উদ্যোক্তা শ্রেণীর আর্বিভাব। বাংলাদেশের রপ্তানীমুখী তৈরি পোশাক শিল্প সারা বিশ্বে বিশেষভাবে প্রসিদ্ধ। জনশক্তি রপ্তানীও দেশটির অন্যতম অর্থনৈতিক স্তম্ভ। বিশ্ব ব্যাংকের প্রাক্কলন এই যে ২০১৮-২০ এই দুই অর্থ বছরে বাংলাদেশের অর্থনীতি প্রতি বছর গড়ে ৬.৭ শতাংশ হারে বৃদ্ধি লাভ করবে।[১৪] গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্রের উর্বর অববাহিকায় অবস্থিত এই দেশটিতে প্রায় প্রতি বছর মৌসুমী বন্যা হয়; আর ঘূর্ণিঝড়ও খুব সাধারণ ঘটনা। নিম্ন আয়ের এই দেশটির প্রধান সমস্যা পরিব্যাপ্ত দারিদ্র গত দুই দশকে অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণে এসেছে, সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পেয়েছে দ্রুত, জন্ম নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে অর্জিত হয়েছে অভূতপূর্ব সফলতা। এছাড়া আন্তর্জাতিক মানব সম্পদ উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশ দৃষ্টান্তমূলক অগ্রগতি অর্জনে সক্ষম হয়েছে।[১৫], তবে বাংলাদেশে এখনো বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছে যার মধ্যে রয়েছে পরিব্যাপ্ত রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক দুর্নীতি, বিশ্বায়নের প্রেক্ষাপটে অর্থনৈতিক প্রতিযোগিতা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সমুদ্রতলের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলশ্রুতিতে তলিয়ে যাবার শঙ্কা। তাছাড়া একটি সর্বগ্রহণযোগ্য নির্বাচন ব্যবস্থার রূপ নিয়ে নতুন ভাবে সামাজিক বিভাজনের সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশে সংসদীয় গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থা প্রচলিত। বাংলাদেশ দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা ও বিমসটেক-এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। এছাড়া দেশটি জাতিসংঘ, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা, বিশ্ব শুল্ক সংস্থা, কমনওয়েলথ অফ নেশনস, উন্নয়নশীল ৮টি দেশ, জোট-নিরপেক্ষ আন্দোলন, ওআইসি, ইত্যাদি আন্তর্জাতিক
0
এভাবে সরাসরি কপি করে উত্তর পেস্ট করিবেননা।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
0 টি উত্তর 29 বার প্রদর্শিত
29 বার প্রদর্শিত
বিস্তারিত উত্তর চাই।
22 ফেব্রুয়ারি "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা শারিউল ইসলাম নাইম
1 টি ভোট
1 উত্তর 70 বার প্রদর্শিত
70 বার প্রদর্শিত 07 ডিসেম্বর 2018 "নিত্যনতুন সমস্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা AJ Islam
0 টি ভোট
1 উত্তর 24 বার প্রদর্শিত
24 বার প্রদর্শিত 22 নভেম্বর 2018 "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা Md. Khairul
0 টি ভোট
1 উত্তর 14 বার প্রদর্শিত
0 টি ভোট
1 উত্তর 26 বার প্রদর্শিত
...