search
প্রবেশ
নির্বিক এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন এবং পাশাপাশি অন্য কারো প্রশ্নের উত্তর জানা থাকলে তাদের উত্তর দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।এখনই প্রশ্ন করা শুরু করুন।
1 টি ভোট
43 বার প্রদর্শিত
"ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে

1 উত্তর

0 টি ভোট
রব্বানা আফরিগ আলাইনা সবরাওঁ ওয়াতা ওয়াফফানা মুসলিমিন
‘হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদের ধৈর্য দান করো এবং মুসলমানরূপে আমাদের মৃত্যু দাও।’ (সূরা আরাফ : ১২৬)।
প্রেক্ষাপট : অত্যন্ত কঠিন মুহূর্তে আল্লাহর নবী মুসা (আ.) এ দোয়া করেন। তিনি আল্লাহর নির্দেশে ফেরাউনের কাছে সত্যের আহ্বান পৌঁছান। তাকে এক আল্লাহর দাসত্ব কবুল করার জন্য বলেন। ফেরাউন মুসা (আ.) কে উপহাস করে আর বলে, তুমি নবী হয়ে থাকলে তার পক্ষে অলৌকিক ক্ষমতা দেখাও, প্রমাণ দাও। তখন মুসা (আ.) হাতের লাঠিটি ছেড়ে দিলে তা জ্যান্ত সাপের রূপ নেয়। ফেরাউন বলে, মুসা দেখছি, মস্তবড় জাদুকর। তারিখ নির্দিষ্ট করে ঘোষণা দেয়, আমার দেশের জাদুকরদের সঙ্গে তোমার প্রকাশ্য মোকাবিলা হবে।
জাতীয় উৎসবের দিনে উন্মুক্ত ময়দানে জাদুকররা তাদের জাদুর রশিগুলো ছেড়ে দিলে সাপ হয়ে লাফালাফি শুরু করে। এর মোকাবিলায় মুসা (আ.) হাতের লাঠিখানা মাটিতে ছেড়ে দেন। তখন সেই লাঠি অজগর হয়ে একে একে গিলতে থাকে জাদুকরদের সাপরূপী রশি। জাদুকররা মুসা (আ.) এর সত্যতা বুঝতে পেরে সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে সিজদায় পড়ে যায়। ফেরাউন এবারও সত্যপথে এলো না; উল্টো প্রচার-কৌশল চালিয়ে বলল, এ হচ্ছে জাদুকরদের সঙ্গে মুসা (আ.) এর গোপন আঁতাত। ‘তোমরা যদি মুসার পথ ত্যাগ না কর, সবাইকে বিপরীত দিকে হাত-পা কেটে মোসলা বানাব।’ তখন জাদুকররা সত্যের ওপর অবিচল থাকার পরাকাষ্ঠা দেখায়। সেই মুহূর্তেই মুসা (আ.) উপরোক্ত দোয়া করেন।
কাজেই চরম কঠিন মুহূর্তে বিপদ কাটিয়ে ওঠার জন্য মোমিন বান্দা এ দোয়ার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালার সাহায্য কামনা করতে পারেন।

এই প্রশ্নগুলিও দেখুন

1 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর