নিরভিকে ডট কমে আপনাকে স্বাগতম।এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন।প্রশ্ন করতে নিবন্ধন করুন
14 বার প্রদর্শিত
"ধর্ম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন

1 উত্তর

2 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

এটি একটি ভ্রান্ত ধারণা। নবীজী স. মুশরিকের হাতের রান্না খেয়েছেন। তিনি ইহুদী এক নারীর দাওয়াত কবুল করেছিলেন। কাজেই এতে কোনো গোনাহ নেই।

তবে, সেই বে-নামাজী ব্যক্তিকে উপদেশ দেয়া যেতে পারে। এবং নামাজ ছাড়ার গোনাহ ও ভয়াবহতা সম্পর্কে তাকে অবহিত করা যেতে পারে। নবীজী স. বলেছেন,

العهد الذي بيننا وبينهم الصلاة فمن تركها فقد كفر

“আমাদের ও কাফের-মুশরিকদের মাঝে পার্থক্য নামাজ। যে তা ছেড়ে দেয়, সে যেন কুফরী করল”। (সুনানে আহমাদ, নাসায়ী)

অপর এক হাদীসে আছে,

بين الرجل وبين الشرك أو الكفر ترك الصلاة

ব্যক্তি ও কুফর-শিরকের মাঝে পার্থক্য হলো নামাজ ছেড়ে দেয়া। (মুসলিম)

তবে বারবার উপদেশ ও সতর্ক করার পরও যদি সে না শোনে, এবং আপনি বুঝেন যে তার খাবার না খেলে সে লজ্জিত হবে, তাহলে তা করতে পারেন। যেন সে শুধরে যায় এবং নামাজ পড়ে। এটা আল বুগদু ফিল্লাহ বা আল্লাহর জন্য মনোমালিন্য করার শামিল হবে। যা নি:সন্দেহে খুব প্রশংসনীয় কাজ।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন।
মন্তব্য করেছেন
আপনার এই মহামূল্যবান উত্তরটার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
আপনার প্রশ্নটি করুন
নিরবিক একটি প্রশ্ন উত্তর সাইট। এটি এমন একটি প্লাটফরম যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন।আর আপনি যদি সবজান্তা হয়ে থাকেন তাহলে অন্যের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।
...