নির্বিক ডট কমে প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন,প্রশ্ন করতে রেজিস্ট্রেশন করুন
0 টি ভোট
61 বার প্রদর্শিত
10 জুলাই 2018 "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (996 পয়েন্ট)

এই প্রশ্নটির উত্তর দিতে দয়া করে প্রবেশ কিংবা নিবন্ধন করুন ।

1 উত্তর

+2 টি ভোট
10 জুলাই 2018 উত্তর প্রদান করেছেন (4,094 পয়েন্ট)
11 জুলাই 2018 নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

এটি একটি ভ্রান্ত ধারণা। নবীজী স. মুশরিকের হাতের রান্না খেয়েছেন। তিনি ইহুদী এক নারীর দাওয়াত কবুল করেছিলেন। কাজেই এতে কোনো গোনাহ নেই।

তবে, সেই বে-নামাজী ব্যক্তিকে উপদেশ দেয়া যেতে পারে। এবং নামাজ ছাড়ার গোনাহ ও ভয়াবহতা সম্পর্কে তাকে অবহিত করা যেতে পারে। নবীজী স. বলেছেন,

العهد الذي بيننا وبينهم الصلاة فمن تركها فقد كفر

“আমাদের ও কাফের-মুশরিকদের মাঝে পার্থক্য নামাজ। যে তা ছেড়ে দেয়, সে যেন কুফরী করল”। (সুনানে আহমাদ, নাসায়ী)

অপর এক হাদীসে আছে,

بين الرجل وبين الشرك أو الكفر ترك الصلاة

ব্যক্তি ও কুফর-শিরকের মাঝে পার্থক্য হলো নামাজ ছেড়ে দেয়া। (মুসলিম)

তবে বারবার উপদেশ ও সতর্ক করার পরও যদি সে না শোনে, এবং আপনি বুঝেন যে তার খাবার না খেলে সে লজ্জিত হবে, তাহলে তা করতে পারেন। যেন সে শুধরে যায় এবং নামাজ পড়ে। এটা আল বুগদু ফিল্লাহ বা আল্লাহর জন্য মনোমালিন্য করার শামিল হবে। যা নি:সন্দেহে খুব প্রশংসনীয় কাজ।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন।
11 জুলাই 2018 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (996 পয়েন্ট)
আপনার এই মহামূল্যবান উত্তরটার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
নির্বিক ডট কম এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন এবং পাশাপাশি অন্য কারো প্রশ্নের উত্তর জানা থাকলে তাদের উত্তর দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।প্রশ্ন উত্তর করতে নিবন্ধন করুন।

19,809 টি প্রশ্ন

21,643 টি উত্তর

1,597 টি মন্তব্য

4,959 জন সদস্য

...