free
hit counter
নিরবিকে স্বাগতম।এখানে আপনি যেকোনো প্রশ্ন করে সমস্যার সমাধান করে নিতে পারবেন।প্রশ্ন করতে নিবন্ধন করুন।
33 বার প্রদর্শিত
"ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন (763 পয়েন্ট)
বন্ধ

1 উত্তর

2 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (1,258 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

এটি একটি ভ্রান্ত ধারণা। নবীজী স. মুশরিকের হাতের রান্না খেয়েছেন। তিনি ইহুদী এক নারীর দাওয়াত কবুল করেছিলেন। কাজেই এতে কোনো গোনাহ নেই।

তবে, সেই বে-নামাজী ব্যক্তিকে উপদেশ দেয়া যেতে পারে। এবং নামাজ ছাড়ার গোনাহ ও ভয়াবহতা সম্পর্কে তাকে অবহিত করা যেতে পারে। নবীজী স. বলেছেন,

العهد الذي بيننا وبينهم الصلاة فمن تركها فقد كفر

“আমাদের ও কাফের-মুশরিকদের মাঝে পার্থক্য নামাজ। যে তা ছেড়ে দেয়, সে যেন কুফরী করল”। (সুনানে আহমাদ, নাসায়ী)

অপর এক হাদীসে আছে,

بين الرجل وبين الشرك أو الكفر ترك الصلاة

ব্যক্তি ও কুফর-শিরকের মাঝে পার্থক্য হলো নামাজ ছেড়ে দেয়া। (মুসলিম)

তবে বারবার উপদেশ ও সতর্ক করার পরও যদি সে না শোনে, এবং আপনি বুঝেন যে তার খাবার না খেলে সে লজ্জিত হবে, তাহলে তা করতে পারেন। যেন সে শুধরে যায় এবং নামাজ পড়ে। এটা আল বুগদু ফিল্লাহ বা আল্লাহর জন্য মনোমালিন্য করার শামিল হবে। যা নি:সন্দেহে খুব প্রশংসনীয় কাজ।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন।
করেছেন (763 পয়েন্ট)
আপনার এই মহামূল্যবান উত্তরটার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
18 ঘন্টা পূর্বে "যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন shadat (1,532 পয়েন্ট)
নিরবিক ডট কম এমন একটি প্লাটফরম যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন।স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা,যৌন,খেলাধুলা ও শরীরচর্চা,সাধারণ জ্ঞান সহ রয়েছে আরও অনেক বিভাগ।এখনই প্রশ্ন করে আপনার উত্তরটি জেনে নিন।
এই মাসের সর্বোচ্চ পয়েন্ট অর্জনকারী
December 2018:
  1. Shicnan
  2. Siddique
  3. রঞ্জন কুমার বর্মণ
  4. Farhan Monsur
  5. shadat
...