search
প্রবেশ
নির্বিক এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন এবং পাশাপাশি অন্য কারো প্রশ্নের উত্তর জানা থাকলে তাদের উত্তর দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।প্রশ্ন উত্তর করতে এখনই নিবন্ধন করুন।
41 বার প্রদর্শিত
"স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে

1 উত্তর

0 টি ভোট
পেঁয়াজ আমরা সাধারণ তরকারি স্বাদের জন্য ব্যবহার করি। কিন্তু এই পেঁয়াজে রয়েছে বহু গুণাগুণ। আসুন জেনে নেই এই পেঁয়াজে কি কি গুণ রয়েছে।

# ওষধী শাস্ত্রে পেঁয়াজের রয়েছে অনেক রকম ব্যবহার। শরীরের জ্বর জ্বর ভাব, সর্দিতে নাক বন্ধ, কপাল ভার এরকম পরিস্থিতিতে পেঁয়াজের রস নাকে দিলে সর্দি বেরিয়ে আসে। কপাল হাল্কা বোধ হয় এবং জ্বর জ্বর ভাব কেটে যায়।

# অস্থিরকর ভ্যাপসা গরমে শরীর কষে গেলে প্রস্রাবও কষে যায়। সেই ক্ষেত্রে পেঁয়াজের রস এক চা চামচ ঠাণ্ডা পানির সঙ্গে মিশিয়ে খেলে প্রস্রাব স্বাভাবিক হয়ে আসে। পেঁয়াজ শীরের প্রস্রাব ধারণ ক্ষমতা বাড়ায়। অনেক ব্যক্তি রয়েছেন, যারা প্রস্রাব চাপলে আর দাঁড়াতে পারেন না। মুত্র নি:স্বরণের জন্য ব্যস্ত হতে বাধ্য হন। কিন্তু পেঁয়াজের রস ওই অস্থিরকর পরিস্থিতি কাটাতে সাহায্য করে। পেঁয়াজের রস এক চা চামচ করে ৪/৫ দিন খেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসার কথা।

# শরীর গরম হয়ে অনেক সময় নাক দিয়ে রক্ত পড়তে থাকে। সেই ক্ষেত্রে পেঁয়াজের নস্যি নিলে তা বন্ধ হয়ে যায়।

# যারা অর্শ্ব (পাইলস্‌) রোগে ভোগেন পেঁয়াজ তাদের জন্যও একটি বিশেষ উপকারী ভেশজ। যদি কোন কারণে রক্ত পড়া বন্ধ না হয় সেক্ষেত্রে এক চা চামচ পরিমাণ পেঁয়াজের রস পানির সঙ্গে মিশিয়ে খেলে ধীরে ধীরে রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে যায়। একই পরিমাণ পেঁয়াজের রস গরম পানিতে মিশিয়ে খেলে কোষ্ঠ ও দাস্ত পরিষ্কার হয়।

# অনেক সময় কানের বাইরে ঘা হয়। কিন্বা বিশফোঁড়া পেকে টন টন করে। সেক্ষেত্রে পেঁয়াজের রস ৪/৫ ফোটা অল্প অল্প করে দিলে ব্যথা কমে গিয়ে ঘা বা ফোঁড়া ভালো হয়ে যায়।

সম্পর্কিত প্রশ্ন

1 উত্তর
চুলপড়া রোধ করতে শুধু পেঁয়াজ এর রস ব্যাবহার করলে হবে কি।কি ভাবে ব্যাবহার করলে বেশি উপকার পাওয়া যাবে।
02 জুলাই 2018 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা Goneshray
0 টি উত্তর
পানিবাহিত রোগের লক্ষণ কি কি
28 জানুয়ারি 2019 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা ফারহান